ই পর্চা বা খতিয়ান ডাউনলোড করার নিয়ম

আপনি নিশ্চই ই পর্চা খতিয়ান ডাউলোড করতে চাচ্ছেন। আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আপনি এখান থেকে ডাউলোড করতে পারবেন।

পর্চা কি কোথায় পাওয়া যায়। ই পর্চা এর ব্যবহার ও প্রয়োজনীয়তা এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত থাকছে আজকের এই আর্টিক্যালে। বর্তমান সময়ে সব চেয়ে গুরত্ব পূণ্য বিষয় এটি। অনেকই আছেন এখনো ভূমি এই প্রয়োজনীয় কাগজটি সংগ্রহ করার জন্য টাকা ব্যয় করেন প্রচুর। কিন্তু স্মার্ট ভূমি সেবার কারণে বর্তমানে প্রায় সকল সেবা গ্রহণ করা যায় ঘরে বসেই। তাই আজকের এই আর্টিক্যালটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন আশাকরি আপানার উপকারে আসবে। E Porcha gov bd ডাইলোড লিংক একেবারে নিচে দেয়া আছে।

ই পর্চা বা খতিয়ান কি

পর্চা বা খতিয়ান একি জিনিস। তবে বর্তমানে ইলেক্ট্রনিক ভাবে ঘরে বসে যে পর্চার সেবা পাওয়া যায় বা দেওয়া হয় সেটাকে ই খতিয়ান বা ই পর্চা বলা হয়। আগেকার সময় এই পর্চার জন্য আমাদের অনেক ঝামেলা পুহাতে হতো। তার পরেও অনেক সময় পাওয়া যেতো প্রয়োজনি এই খতিয়ানের কপি। বর্তমানে আর এই সমস্যা নেই। এখন ঘরে বসে এ নথি সংগ্রহ করা যায় ই পর্চা সার্ভিসের মাধ্যমে।

তাছাড়া এখন অনলাইনে পর্চার জন্য আবেদন করা যায়। দাগ নাম্বার খতিয়ান নাম্বার বা মালিকের নাম লিখে সার্চ করে বের করে নেওয়া যায় জমির তথ্য। কি ভাবে ডাউলোড করবেন। কোথা থেকে করবেন বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। এবং লিংক দেয়া আছে আপনি সেখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন খুব সহজে E Porcha gov bd থেকে।

কি ভাবে ই পর্চা অনুসন্ধান করা হয়

অনুসন্ধান বা খোঁজা একই জিনিস। আমরা ই পর্চা খোঁজবো অনলাইনে। আর এই কর্মের জন্য আপনার কিছু তথ্য জানা থাকতে হবে। যেমন খতিয়ানের মালিকের নাম। খতিয়ান নাম্বার অথবা দাগ নাম্বার। অবশ্যই মৌজার নাম অথবা জে.এল নাম্বার জানা থাকতে হবে। যদি আপনি এই বিষয় গুলো জানেন তবে আপনি শুরু করতে পারেন।

আরো পড়ুন:- এস এ পর্চা ডাউলোড

খতিয়ান অনুসন্ধান আর পর্চা অনুসন্ধানের মাঝে পার্থক্য কি

খতিয়ান অনুসন্ধান ও পর্চা অনুসন্ধানের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। শুধু লিখার ক্ষেত্রে পার্থক্য দেখা যাবে। কারণ আপনি যেটাই লিখে সার্চ করুন রেজাল্ট একি সার্ভার বা সাইটে পাবেন। ই খতিয়ান পর্চা সবই একি জিনিস। তাই আপনি খুব সহজে পেয়ে যাবেন। কি ভাবে সার্চ করবেন তা এখন আলোচনা করা হবে। এবং নিচের লিংক থেকে আপনি ডাউলোড করতে পারবেন।

নতুন নিয়মে সংগ্রহ করুন পর্চার কপি

প্রথমে আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারে যে কোনো একটি ব্রাউজার ওপেন করুন। এবং সার্চ বক্সে লিখুন ই পর্চা অথবা eporcha.gov.bd অতপর সার্চ করুন। এবার আপনি ধারাবাহিক তথ্যগুলো পূরণ করুন। প্রথমে আপনার বিভাগ তারপর ধারাবাহিক জেলার নাম উপজেলার নাম মৌজার নাম এবং খতিয়ানের ধরন নির্বাচন করুন। এবার আপনি কি দিয়ে সার্চ করবেন।

যদি আপনার খতিয়ান নাম্বার জানা থাকে তবে খতিয়ান লিখে খুজুন অপশনে ক্লিক করুন। যদি জানা না থাকে তবে আপনি অধিকতর অনুসন্ধানে ক্লিক করুন। তার পর আপনি দাগ নাম্বার দিয়ে সার্চ করুন। যদি আপনি সেটা না জানেন তবে জমির মালিকের নাম লিখে সার্চ করুন।

খতিয়ান নাম্বার দাগ বা মালিকের নাম জানা না থাকলে কি করবো

যদি আপনি কোনো কিছুই না জানেন তবে হতাশ হওয়ার কারণ নেই । সব কিছুর একটা সমাধান আছে। আপনাকে কষ্ট করে কোনো স্থানীয় মোহরীর কাছে যেতে হবে। এবং উনার কাছ থেকে আপনি আপনার নির্দিষ্ট জমির দাগ নাম্বার জেনে নিতে পারবেন। এবং আপনি পরবর্তী কাজ অনলাইন থেকে করে নিতে পারবেন। ই পর্চা আরো আপডেট হচ্ছে ধারাবাহিক সব কাজ স্মার্ট ভূমি সেবাই হবে।

কি কি লাগবে

উপরে বর্ণনা করা হয়েছে কি লাগবে। এর বাহিরে আপনার আরো কিছু জিনিস লাগবে , যেমন আপনার ভোটার আইডি কার্ড এবং আপনার মোবাইল নাম্বার এবং আপনার অনলাইন কপি সংগ্রহের জন্য আপনার বিকাশে ১০২ টাকা রাখতে হবে। কারণ আপনাকে নির্ধারিত এই ই পর্চা ফি প্রদান করতে হবে। যদি আপনি ফি প্রদান না করে তবে আপনি সংগ্রহ করতে পারবেন না।

পর্চা ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

ইতিকথা

পরিশেষে বলা যায় যে আজকের এই আর্টিক্যালের মাধ্যমে আমার ই পর্চা নিয়ে বিস্তারিত ধারনা পেয়েছি। এখন থেকে আর এ সার্ভিসটি নিতে আশাকরি আমাদের আর কোনো ঝামেলা হবেনা। এবং আমাদের এক্সট্রা টাকা বা সময় ব্যায় করতে হবেনা। এখন থেকে আমরা ঘরে বসে হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে ই পর্চা সংগ্রহ করতে পারবো।

যদি আপনি এই আর্টিক্যাল ধারা উপকৃত হয়ে থাকে তবে আশারাখবো আপনি অন্যদেরকে জানার জন্য লিখাটি শেয়ার করবেন। আর যদি আপনি এর পরেও না পারেন আপনি আমাদের সোসাল মিডিয়ায় এড হতে পারেন। আমারা আপনারকে আপনার সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করবো।

Scroll to Top